Home / স্বাস্থ্য টিপস / ইফতারে ডাবের পানি পান করার উপকারিতা

ইফতারে ডাবের পানি পান করার উপকারিতা

এখন যেহেতু রমজান মাস, এ সময় সারাদিন রোজা রাখার কারণে শরীরে পানিশূন্যতার (Dehydration) সৃষ্টি হতে পারে। তাই ইফতারে সবার উচিত ডাবের পানি পান করা। বিশেষজ্ঞদের মতে, গ্রীষ্মের দিনে পানির পর আপনার প্রথম পছন্দ হওয়া উচিত ডাবের পানি। ডাবের পানি (Coconut Water) পান করলেই শরীরে কুলিং ইফেক্ট পাওয়া যায়। এছাড়া এতে থাকে পটাশিয়াম (Potassium), ম্যাগনেশিয়ামের ভাণ্ডার, যা দেহে ইলেকট্রোলাইটসের ভারসাম্য বজায় রাখে। গবেষণায় দেখা গেছে, ডাবের পাণি নিয়মিত খেলে শরীর সুস্থ থাকে। অনেক রোগ-ব্যাধি থাকে দূরে।ডাবের পানি

ইফতারে ডাবের পানি পান করার উপকারিতা

নিয়মিত ইফতারে ডাবের পানি পান করলে শরীরের কী কী উপকার মেলে, চলুন জেনে নেওয়া যাক-

পানির ঘাটতি দূর হয়: ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিক জানাচ্ছে, গ্রীষ্ম প্রধান দেশে ডাবের পাণি হলো আশীর্বাদ স্বরূপ। এই পানি শরীরের পানির ঘাটতি দূর করে। আসলে গরমে ঘামের মাধ্যমে দেহ থেকে পটাশিয়াম, সোডিয়াম (Sodium) ও ম্যাগনেশিয়াম বের হয়ে যায়। এমনকি পানির ঘাটতিও তৈরি হয়। এই পরিস্থিতিতে শরীরকে সুস্থ রাখতে খেতে পারেন ডাবের পানি। এতে এমন কিছু উপাদান আছে, যা পানির ঘাটতি পূরণ করার পাশাপাশি ইলেকট্রোলাইটসের ভারসাম্য ফেরায়। তাই রোজার এ সময় ইফতারে রাখুন ডাবের পানি।

এই পানীয়ে আছে প্রাকৃতিক মিষ্টি। যা ক্যালোরির পরিমাণ বাড়ায় না। অন্যদিকে বিভিন্ন পানীয়ে চিনি মেশানোর ফলে এমন পানীয়তে ক্যালোরির (Calorie) পরিমাণ বেড়ে যায়। সেদিক থেকে ডাবের পাণি দারুণ বিকল্প হতে পারে। এতে ক্যালোরি থাকে কম। ফলে ওজন বাড়ার ঝুঁকি থাকে না।

ফ্যাট ও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে থাকে: ডাবের ৯৪ শতাংশই পানি। এছাড়া এই পানি ফ্যাট ও কোলেস্টেরল (Cholesterol) ফ্রি। অর্থাৎ এই পানীয় পান করলে ফ্যাট বা কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ে না। তাই হার্টের অসুখ থেকে শুরু করে কোলেস্টেরলের সমস্যায় আক্রান্তরা অনায়াসে খেতে পারেন ডাবের পানি। এমনকি ওজনও কমতে পারে এই পানীয় খেলে।

কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমায়: কিডনিতে খনিজ জমে জমে স্টোনের আকার নেয়। সাধারণত যারা কম পরিমাণে পানি পান করেন, তাদের কিডনিতে পাথর হতে পারে। এক্ষেত্রে একটি বা দুটি কিডনিতেই হতে পারে পাথর। এই সমস্যার সমাধান করতে পারে ডাবের পানি। নিয়মিত পান করলে কিডনিতে খনিজ জমার সুযোগ পায় না। ফলে কিডনি স্টোনের (Kidney stone) ঝুঁকি কমে।

সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন। আমাদের লেখা আপনার কাছে কেমন লেগেছে এবং আপনার যদি কোনো প্রশ্ন অথবা মতামত থেকে থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। আর আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে শেয়ার করুন। সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

Check Also

খাবার

সারা দিনে শক্তি জোগাবে যেসব খাবার

সারা দিন রোজা রেখে ইফতার-পরবর্তী সময় ক্লান্তি (Tiredness) যেন জেঁকে বসে একেবারে। উৎপাদনক্ষমতা একদম কমে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *