Home / ত্বকের যত্ন / রোজার মাসে ত্বকের যত্ন নিতে যা যা করবেন

রোজার মাসে ত্বকের যত্ন নিতে যা যা করবেন

রোজায় দিনে শরীরে পানিশূন্যতা (Dehydration) তৈরি হতে পারে। এ সময় ত্বকের আলাদা যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। পরামর্শ দিয়েছেন রেড বিউটি স্যালনের স্বত্বাধিকারী ও রূপ বিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। প্রচণ্ড গরমে জনজীবন নাজেহাল অবস্থা। কয়েক দিন পর শুরু হচ্ছে রোজার মাস। যাঁরা রোজা রাখবেন তাঁরা দীর্ঘ সময় ধরে পানি ও খাবার গ্রহণ না করার ফলে শরীরের পানিস্বল্পতা দেখা দিতে পারে। সেই সঙ্গে ত্বক (Skin) মলিন হয়ে পড়ে দেখা দিতে পারে নানা সমস্যা। এই সময়টাতে ত্বকের একটু বাড়তি যত্ন দরকার হয়। রোজার পরই ঈদ আর ঈদে সবাই চায় নিজেকে সুন্দর দেখা যাক। তাই রোজার সময় কিছু সতর্কতা মেনে চললে রোজার পর আপনি থাকবেন আরো সুস্থ ও সুন্দর।ত্বকের যত্ন

রোজার মাসে ত্বকের যত্ন নিতে যা যা করবেন

রোজার সময় খাবারদাবার গ্রহণের সময়সীমায় বেশ পরিবর্তন আসে। এ সময় নিয়ম মেনে শরীরের বাড়তি যত্ন করতে হবে। যত্ন মানেই সব সময় পার্লারে যাওয়া তা কিন্ত নয়। ঘরোয়া পদ্ধতি ও উপাদানে খুব সহজেই ত্বকের এই যত্নটুকু করা যায়।

রোজার সময় ত্বকে পানিস্বল্পতা দেখা দেয়। তাই ত্বক খুব শুষ্ক হয়ে পড়ে। ত্বকে মরা চামড়া দেখা যায়। অনেকের ত্বক (Skin) লাল হয়ে পড়ে। মরা চামড়া ত্বকের উপরি ভাগে জমা হয়ে লোমকূপ বন্ধ করে দিতে পারে। এ সময় ত্বক পরিষ্কার রাখা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। বাইরে থেকে এসেই আগে ক্লিনজিং ব্যবহার করতে হবে। ভালো ব্র্যান্ডের ফেসওয়াশ (Face wash) দিয়ে মুখ ধুতে হবে। এ সময় বারবার মুখে পানির ঝাপটা দেওয়া ভালো। সকালে ঘুম থেকে উঠে মুখে বরফ টুকরা দিয়ে ঘষতে পারেন। ত্বক সতেজ হবে ও মুখের ফোলা ভাব কমে আসবে। এরপর স্ক্র্যাবিং করতে হবে। ত্বকের ধরন অনুযায়ী স্ক্র্যাব বেছে নেওয়া খুব জরুরি। এতে ত্বকের লোমকূপে লুকিয়ে থাকা ময়লা পরিষ্কার হবে আর ত্বক আগের লাবণ্য ফিরে পাবে। স্ক্র্যাবিং করার পর অবশ্যই ত্বকে ময়েশ্চারাইজার (Moisturizer) ব্যবহার করতে হবে।

পেঁপের প্যাক
পেঁপে যে শুধু স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী তা কিন্তু নয়, এটি আমাদের ত্বকের মলিনতা দূর করতেও সাহায্য করবে। দুই চা চামচ পেঁপের পেস্ট, দুই চা চামচ মধু ও পেঁপের পেস্ট একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই পেস্টটি ত্বকে ১৫ মিনিট চক্রাকারে ম্যাসাজ করুন। প্যাকটি শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বককে প্রাকৃতিকভাবে ফরসা করে। কয়েকটি উপকারী প্যাকও ব্যবহার করতে পারেন।

শসার প্যাক
শসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ পানি, যা আপনার ত্বককে মসৃণ এবং আর্দ্র করে। রোদে পোড়া ত্বকের জন্য শসা অনেক বেশি কার্যকর। যা যা লাগবে—দুই চা চামচ শসার কুচি, আধা কাপ টক দই (Sour yogurt)। এরপর শসা ও টক দই একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই প্যাকটি ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন। কিছুটা শুকিয়ে গেলে কুসুম গরম পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি সপ্তাহে দুবার ব্যবহার করুন।

লেবুর রস
রোজায় নির্জীব ত্বক উজ্জীবিত করে তুলতে লেবু বেশ কার্যকর। লেবুর রস (Lemon juice) ত্বকের কালো দাগ দূর করার সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের মলিনতা দূর করতে সাহায্য করবে। এক চা চামচ লেবুর রস, ডিমের সাদা অংশ, আধা চা চামচ দুধের সর, লেবুর রস, ডিমের সাদা অংশ এবং দুধের সর মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি ত্বকে ১৫ মিনিট রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি সপ্তাহে এক বা দুবার ব্যবহার করুন।

রোজায় আমাদের খাবারদাবারের বেশ ভালো একটা পরিবর্তন আসে। এ সময় ভাজাপোড়া খাওয়ার একটা প্রচলন আমাদের দেশে আছে। যাঁরা ত্বক নিয়ে একটু চিন্তিত তাঁরা এই ভাজাপোড়া খাবার এড়িয়ে চলুন। খাদ্য তালিকায় যথাসম্ভব ফলমূল ও শাক-সবজি (Vegetable) রাখার চেষ্টা করুন। পানি জাতীয় খাবার বেশি বেশি রাখতে হবে এ সময়। অনেকেই ইফতারের পর বারবার চা-কফি খেয়ে থাকেন। অতিরিক্ত চা-কফি পান করলে ডিহাইড্রেশনের সমস্যা আরো বাড়তে পারে। তা ছাড়া চা-কফিতে ক্যাফেইন থাকে, যা আমাদের শরীরের তাপমাত্রা ও উদ্বেগ বৃদ্ধি করে।

আমাদের লেখা আপনার কাছে কেমন লেগেছে এবং আপনার যদি কোনো প্রশ্ন অথবা মতামত থেকে থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। আর আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে শেয়ার করুন। সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন।

Check Also

মেছতার দাগ

মেছতার দাগ দূর হবে মাত্র দুই উপাদানে

মুখের মেছতার সমস্যা অনেকেরই হয়। বিশেষ করে ৩৫-ঊর্ধ্ব নারী-পুরুষের এ সমস্যা বেশি দেখা দেয়। এ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *